১০ হাজার টাকার মধ্যে সেরা কিছু মোবাইল ফোন।

Best Mobile Under 10000 taka

আমাদের আজকের এই পোস্টটি তাদের জন্য যারা কম বাজাটের মধ্যে ফোন কিনতে চান।


কম বাজেট বলতে ১০ হাজার টাকার মধ্যে যাদের বাজেট। আমরা আজকে আমাদের এই পোস্টে এখন পর্যন্ত মার্কেটে আসা সবচেয়ে ভালো ফোনগুলো তুলে ধরব। যাতে আপনারা সহজেি সিদ্ধান্ত নিতে পারেন কোন ফোনটি কিনবেন।

এছাড়া ফোনেট বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দিক আপনাদের সামনে তুলে ধরা হবে। আশা করি আজকলর এই পোস্টটি অনেক উপকারী হবে। চলুন শুরু করি।

Real Me C11:

৬.৫ ইঞ্চির ডিসপ্লেতে ভিডিও দেখে স্ট্রিমিং করে ভালোই মজা পাওয়া যায়।এর ডিসপ্লে রেজুলেশন হচ্ছে 720*1560 পিক্সেল।
আইপিএস এলসিডি টাসস্রীন ব্যবহার করা হয়েছে।

ক্যামেরাঃ

ক্যামেরা হিসেবে এতে আছে ১৩ + ২ মেগাপিক্সেলের ডুয়াল ক্যামেরা সেটাপ।
এর ব্যাক ক্যামেরায় ভিডিও রেকর্ডিং হয় ১০৮০ পিক্সেলের।

সেলফি ক্যামেরা হিসেবে থাকছে ৫ মেগাপিক্সেলের ক্যামকরা।

ব্যাটারিঃ

ডিসপ্লে সাইজ অনুযায়ী এর ব্যাটারি মোটামুটি ভালোই।
এতে রয়েছে ৫০০০ mAh এর লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি।
সাথে দেওয়া হয়েছে ১০ ওয়াটের একটি ফাস্ট চার্জার।
ব্যাটারি ব্যাকাপ ভালোই পাওয়া যাবে এতে।

এতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে থাকছে Android 10 অপারেটিং সিস্টেম।

চিপসেটঃ

এতে চিপসেট হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেকের G35 (12nm). এই বাজেটে যা যথেষ্ট ভালো।

প্রসেসরঃ অক্টাকোর 2.3 GHz প্রসেসর।
র্যাম/রমঃ ২/৩২

এখানে উল্লেখ্য যে ফোনটিতে ফিঙ্গারপ্রিন্ট নেই। যা হতাশাজনক। এটি খুবই বাজে একটি কাজ করেছে রিয়েলমি।
এর থেকে অনেক কম বাজেটের ফেনেও ফিঙ্গারপ্রিন্ট থাকে।
এ ছাড়া আর কেন সমস্যা নেই।

গেমিং বলতে পাবজি লাইট, ফ্রী ফায়ার এগুলে ভালোই চলবে।
কারন প্রসেসর ভালোই আছে এটিতে।

এর দাম হচ্ছে ৮,৯৯৯ টাকা।

  1. Infinix Hot 9 Play:
    কম বাজেটের মধ্যে সেরা সেরা ফোন বানানের জন্য ইনফিনিক্স খবুই বিখ্যাত। ইনফিনিক্স কম বাজেটের মধ্যে সেরা ফিচার যুক্ত করেছে বলেই বাংলাদেশে অন্যতম জনপ্রিয় একটি ব্র্যান্ডে পরিনত হয়েছে।
    ভবিষ্যতে এ কোম্পানি বিশ্ব কাপাবে তা বলাই যায়।

ইনফিনিক্স তাদের এ ফোনটি রিলিস করে ৯ এপ্রিল ২০২০ সালে।

ক্যামেরাঃ
এর ক্যামেরা হিসেবে থাকছে ১৩ মেগাপিক্সেলের ডুয়াল ক্যামেরা সেটাপ।
যাতে ভিডিও রেকর্ডিং করা যায় ১০৮০ পিক্সেল পর্যন্ত।

সেলফি ক্যামেরা হিসেবে থাকছে ৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা।
এই বাজেটের মধ্যে ক্যামেরা সেটাপ ভালোই বলা যায় ফোনটির।

ব্যাটারিঃ ব্যাটারিতে ভালোই নজর দিয়েছে ইনফিনিক্স এতে ব্যবহার করা হয়েছে ৬০০০ mAh এর বিশাল ব্যাটারি। ব্যাটারি ব্যাকাপ নিয়ে আর ভাবতে হবে না। সাথে আছে ১০ ওয়াটের একটি ফাস্ট চার্জার।

ডিসপ্লেঃ এর ডিসপ্লের দৈর্ঘ্য হচ্ছে ৬.৮ ইঞ্চি।
যার রেজুলেশন 720*1640 পিক্সেল।

ডিসপ্লে সাইজ অনেক বড় করে ফেলেছে। তবে ভিডিও দেখে স্ট্রিমিং করে, ব্রাউজিং করে ভালো শান্তি পাওয়া যাবে।

এতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে থাকছে Android 10

চিপসেটঃ চিপসেট হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়া টেকের A25 (12nm)

প্রসেসরঃ অক্টাকোর ১.৮ GHz।

র্যাম/রমঃ 2/32 এবং 4/64 দুটি ভ্যারিয়েন্ট আছে।

এর দাম কত?

2/32 ভ্যারিয়েন্টের দাম হচ্ছেঃ ৯,৭৯০ টাকা
4/64 ভ্যারিয়েন্টের দাম হচ্ছেঃ ৯,৯৯০ টাকা

এটি কোন গেমিং ফোন না। তবে টুকটাক গেমিং করা যাবে।
এটি তাদের জন্য যারা শুধু নেট ব্রাউজিং, ভিডিও দেখা, ছবি উঠা এসব কাজ করবে।
হেভি ইউজারদের জন্য এ ফোনটি উপযোগী না।

3.Tecno Spark 6 Air:

অনেক আগে থেকেই গরজিয়াস সব ডিজাইনের জন্য টেকনো বিখ্যাত। কম বাজেটের মধ্যে প্রিমিয়াম সব ডিজাইন তৈরীতে যাদের সুনাম আছে।
ডিজাইনের দিক থেকে এদের পিছনে ফেলা মুশকিল।

ক্যামরাঃ
১৩ + ২ + ০.৩ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা সেটাপ নিয়ে ফোনটিকে ভালোই আকর্ষণীয় মনে হয়।

সেলফি ক্যামেরা হিসেবে এতে থাকছে ৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা।

ক্যামেরার দিক থেকে মোবাইলটি যথেষ্ট এগিয়ে আছে।

ব্যাটারিঃ

ফোনটিতে ব্যাটারি হিসেবে আছে ৬০০০ mAh এর লং লাস্টিং লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি।
লং টাইম ব্যাকাপ পাওয়া যাবে এডে কোন সন্দেহ নেই। এটি ফুল চার্জ হতে সময় নেয় ২.২ ঘন্টার মত।

এতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে থাকছে Android 10।

চিপসেটঃ

মিডিয়াটেক হেলিও A25 (12nm) চিপসেট ব্যবহার করা হয়েছে।

প্রসেসরঃ অক্টাকোর 1.8 GHz এর প্রসেসর।

ডিসপ্লেঃ এর ডিসপ্লের দৈর্ঘ্য হচ্ছে ৭ ইঞ্চি। আইপিএস এলসিডি ডিসপ্লে। রেজুলেশন হচ্ছে 720*1640 পিক্সেল।

ডিসপ্লেটা খুবই বড় মনে হবে সবার কাছেই।

ওভারওল বাজেট অনুযায়ী ফোনটা ভালোই। তবে হেভি ইউজের জন্য এই মোবাইল উপযোগী না।

৪. Walton Primo H9 pro:

আমাদের লিস্টে ৪ নম্বরে জায়গা করে নিয়েছে দেশীয় ব্র্যান্ড ওয়ালটন।
প্রিমিয়াম ডিজাইনের ফোন তৈরীতে আমাদের ওয়ালটনের জুড়ি মেলা ভার।
কম দামের মধ্যে অাধুনিক সব ফিচার যুক্ত থাকে ওয়ালটনে।

ওয়ালটনের এ ফোনটি রিলিস হয় মে ২০২০ সালে।

ক্যামেরাঃ
এতে রয়েছে ১৩ + ৫ + ০.৩ মেগাপিক্সেলের ত্রিপল ক্যামেরা সেটাপ।
সেলফি ক্যামেরা হিসেবে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা।
উভয় ক্যামলরাতেই ভিডিও রেকর্ড হয় হয় ফুল এইচডি ১০৮০ পিক্সেলে।

ব্যাটারিঃ এর ব্যাটারি হিসেবে থাকছে ৪০০০ mAh এর লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি।

অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে থাকছে Android 10।

চিপসেটঃ মিডিয়া টেক হ্যালিওর A20 ব্যবহার করা হয়েছে।

প্রসেসরঃ কোয়াডকোর 1.8 GHz (Cortex A-53)

ডিসপ্লেঃ
এর ডিসপ্লের দৈর্ঘ্য ৬.১ ইঞ্চি। রেজুলেশন 720*1560 পিক্সেল।আইপিএস টাচস্ক্রীন।

ফোনটির দাম হচ্ছে ৯,৭৯৯ টাকা।

  1. Symphony Z30: আমাদের লিস্টের ৫ নাম্বারে আছে বিখ্যাত সিম্পোনি ব্র্যান্ডের একটি ফোন।

ক্যামেরাঃ এতে ক্যামেরা হিসেবে থাকছে ১৩ + ২ + ৫ মেগাপিক্সেলের ত্রিপল ক্যামেরা সেটাপ।

সেলফি ক্যামেরা হিসেবে থাকছে ৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা।

ব্যাটারিঃ
এতে রয়েছে ৫০০০ mAh এর লং লাস্টিং লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারি। সাথে রয়েছে ১০ ওয়াটের একটি ফাস্ট চার্জার।

অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে থাকছে এন্ডয়েড 10

চিপসেটঃ মিডিয়া টেক হেলিও A25 (12nm)
প্রসেসরঃ অক্টাকোর 1.8 GHz।

ডিসপ্লেঃ এর ডিসপ্লের দৈর্ঘ্য ৬.৫২ ইঞ্চি। রেজুলেশন হচ্ছে 720*1600 পিক্সেল।

ফোনটি যথেষ্ট ভালো পারফরম্যান্স করে।
পাবজি লাইট, ফ্রী ফায়ার ভালো খেলা যায় এতে।
টুকটাক গেমিং এর জন্য ফোনটা ভালোই আছে। যারা হালকা পাতলা কাজ করেন তারা নিতে পারেন।

এর দাম হচ্ছে টাকা।